সাঁতার কেটে বাঁচতে চাই

এক জরিপে দেখা যাচ্ছে, বাংলাদেশে গড়ে দিনে ৪০টি শিশু মারা যাচ্ছে পানিতে ডুবে। জনসংখ্যার অনুপাতে বিশ্বে সবচেয়ে বেশি শিশু পানিতে ডুবে মারা যায় বাংলাদেশে। এমনকি রোগে ভুগে মৃত্যুর চেয়ে দেশটিতে পানিতে ডুবে মৃত্যুর হারই বেশি বলে মনে করেন গবেষকরা। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্য অনুযায়ী, পানিতে ডুবে বেশি শিশুর মৃত্যু ঘটে এশিয়াতেই, বিশেষ করে দক্ষিণ এশিয়ায়।

ব্লুমবার্গ ফিলানথ্রপিস, জন হপকিন্স ইন্টারন্যাশনাল ইনজুরি রিসার্চ ইউনিট, দি সেন্টার ফর ইনজুরি প্রিভেনশন অ্যান্ড রিসার্চ বা সিআইপিআরবি এবং আইসিডিডিআরবি’র এক গবেষণায় এই তথ্য বের হয়েছে।

সবাই বলে নিউমোনিয়া, ডায়রিয়ায় বেশি মারা যায়; কিন্তু আসলে বেশি শিশু মারা যায় পানিতে ডুবে। কিন্তু এটা রিপোর্ট হয়না। প্রতি বছর ১৪ হাজারের মতো শিশু পানিতে ডুবে মারা যায়। অর্থাৎ গড়ে প্রতি দিন ৪০ জন শিশু প্রাণ হারাচ্ছে পানিতে ডুবে।”

“ধরুন একটি ক্লাসে ৪০ জন শিক্ষার্থী থাকে। আর প্রতিদিনই এদেশে এমন একটি ক্লাসরুম খালি হয়ে যাচ্ছে পানিতে ডুবে মৃত্যুর কারণে।” অথচ আমরা কিভাবে এতবড় একটি বিষয়ে নিশ্চুপ আছি !!!

গতকাল নবাবগঞ্জের আশুড়ার বিলে ৫ শিক্ষার্থী নৌকা নিয়ে ঘুরতে যায়। এক সময় বিলের পানিতে নৌকাটি ডুবে গেলে সাঁতার না জানায় সবাই তলিয়ে যায়। পরে স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে নবাবগঞ্জ হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তিনজনকে মৃত ঘোষণা করেন। এ ঘটনায় আরও দুই শিক্ষার্থী গুরুতর আহত অবস্থায় ভর্তি আছে।

তাই আসুন সচেতন হই। শিশুর ভবিষ্যৎ নিরাপত্তায় তাকে অবশ্যই সাঁতার শেখাই।

বিদ্রঃ  সানশাইন স্কুলের সকল শিক্ষার্থীদের সাঁতার বাধ্যতামুলক করা হয়েছে। শিশুর সাঁতার শেখার বিষয়ে শিক্ষার্থীর অভিভাবককে নিজ উদ্যোগে পরিকল্পনা গ্রহন ও বাস্তবায়ন করার ব্যাপারে অনুরোধ করা হচ্ছে।

Related Blogs

Leave us a Comment

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.